SSC Exam

৫ টি ভুল এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রে করা যাবে না – জেনে নাও এখনই

Pinterest LinkedIn Tumblr

মাধ্যমিক পর্যায়ে চলতি বছর এসএসসি পরীক্ষা আর মাত্র কয়েকদিন পর শুরু হবে বলে ইতোমধ্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে রুটিন প্রকাশ করেছে।

এই অবস্থায় এসে পরীক্ষার সময় শিক্ষার্থীরা নানা ধরনের ভুল ভ্রান্তি করে থেকে পরীক্ষা কেন্দ্রে গিয়ে।

আমরা শিক্ষার্থীদের গুরুত্বপূর্ণ ৫ টি ভুল নিয়ে কথা বলব যে ভুলগুলো পরিচিতি শিক্ষার্থীরা

করা থেকে বিরত থাকতে হবে কারণ এই ভুল গুলো তাদের বড় ধরনের সমস্যা তৈরি করবে।

আর পড়ুনঃ

তাছাড়া অনেক শিক্ষার্থী প্রথমবারের মতো পাবলিক পরীক্ষায় অর্থাৎ বোর্ড পরীক্ষায় বসতে যাচ্ছে।

এই অবস্থায় সে অনেকেই বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন তথ্যের মাধ্যমে বিব্রতকর পরিস্থিতির শিকার হয়।

তাই আজকে শিক্ষার্থীদের সামনে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি তথ্য তুলে ধরব সম্পন্ন পোস্ট পড়তে হবে।

পরীক্ষা কেন্দ্রে কোন প্রকার ডিজিটাল ডিভাইস নেওয়া যাবেনাঃ

ডিজিটাল ডিভাইস বলতে মোবাইল ফোন ক্যালকুলেটর ঘড়ি কে বুঝানো হয়েছে এক্ষেত্রে পরীক্ষা কেন্দ্রে কোন ধরনের

স্মার্ট জাতীয় ঘড়ি ক্যালকুলেটর বা মোবাইল নেওয়া যাবে না। ক্যালকুলেটর ব্যবহারের ক্ষেত্রে বলা হয়েছে নন প্রোগ্রামেবল ক্যালকুলেটর

ব্যবহার করতে পারবে এবং ঘড়ির ক্ষেত্রে স্বাভাবিক ঘড়ি ব্যবহার করা যাবে কোন ধরনের ডিজিটাল স্মার্ট ঘড়ি ব্যবহার করা যাবে না।

আর পড়ুনঃ

পরীক্ষা কেন্দ্রে সঠিক সময়ে প্রবেশ করতে হবেঃ

বিশেষ করে শিক্ষার্থীরা প্রথমদিনে পরীক্ষা কেন্দ্রে অনেক দেরি করে যায় তাই শিক্ষার্থীদের উচিত পরীক্ষাকেন্দ্রে সঠিক সময় উপস্থিত থাকা।

এক্ষেত্রে পরীক্ষা শুরু 30 মিনিটের এর আগেও এখানে থাকতে হবে অর্থাৎ 40 থেকে 45 মিনিট আগে পরিস্থিতিতে

থাকতে হবে 30 মিনিট এরপরে যদি কোনো শিক্ষার্থীর যায় তার রোল নাম্বার রেজিস্ট্রেশন নম্বর সহ সকল তথ্য বোর্ডের

কাছে পাঠানো হবে যা শিক্ষার্থীদের জন্য অবশ্যই বিব্রতকর পরিস্থিতির শিকার করবে করবে তৈরি করবে।

পরীক্ষা ওএমআর সিটে কোন ভুল করা যাবেনাঃ

ওএমআর শিট খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় প্রতিটি ঘর সুন্দর ভাবে পূরণ করতে হবে এবং সঠিক ভাবে পূরণ

করতে হবে রোল নম্বর রেজিস্ট্রেশন নম্বর বিষয় কোড নাম সেট কোড সবকিছু সুন্দরভাবে পূরণ না করলে

আর পড়ুনঃ

পরীক্ষার রেজাল্ট ফেলে চলে আসবে তাই অবশ্যই বিষয়গুলো মনোযোগ সহকারে পূরণ করতে হবে সকলকে।

নকল করা বা প্রশ্ন ফাঁস করা যাবে নাঃ

অনেক শিক্ষার্থীর বিভিন্ন জায়গায় দেখে প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে তাই তারাও প্রশ্ন এনে পড়াশোনা করে পরবর্তীতে দেখা

যায় সেই প্রশ্ন কমন পড়ে না বা কমন পড়লো। পরবর্তীতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাদের শনাক্ত করে

এবং শাস্তির আওতায় নিয়ে আসে। তাই এই প্রশ্ন ফাঁসের সাথে কোনো ধরনের কার্যক্রম করা যাবে না।

আর পড়ুনঃ

তাছাড়া পরীক্ষার সময় নকল করা থেকে বিরত থাকতে হবে নকল করলে জেলহাজতে আর্থিক পর্যন্ত দেয়া হয় এমন বিধান রয়েছে সরকারের।

শিক্ষক বা ম্যাজিস্ট্রেটের সাথে ভালো ব্যবহার করতে হবেঃ

যে সকল শিক্ষক দায়িত্বরত থাকবে অর্থাৎ পরীক্ষাকেন্দ্রে দায়িত্বে থাকবে তাদের সাথে অবশ্যই ভালোভাবে করতে হবে

কোনো কারণেই তাদের সাথে খারাপ ব্যবহার করা যাবে না এবং বিশেষ করে ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে কোন

ধরনের খারাপ আচরণ বা দেখাদেখির মতো আচরণ করা যাবেনা স্বাভাবিকভাবে পরীক্ষা দিতে হবে।

আর পড়ুনঃ